Central Hall programme: ‘সেন্ট্রাল হলে রাষ্ট্রপতিকে কেন ডাকা হল না?’ ডেরেক-সাকেতের নিশানায় মোদী সরকার

Advertisement

সংসদের সেন্ট্রাল হলের অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি কোথায়? তিনি কি আমন্ত্রিত ছিলেন? তাঁকে কেন এড়িয়ে যাওয়া হল? মঙ্গলবার এক্স পোস্টে এই প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। সেই পোস্টকে নিজের এক্স হ্যান্ডে হ্যান্ড ট্যাগ করে তৃণমূল সাংসদ সাকেত গোখলে লিখেছেন, ‘নতুন সংসদ ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। আজকে সংসদের সেন্ট্রাল হলের অনুষ্ঠানেও তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হল না। তবে শুধু তৃণমূল নয় একই প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরাও।

সংসদের পুরনো ভবনকে বিদায় দিয়ে নতুন ভবনে পথ চলা শুরু হল মঙ্গলবার থেকে। ২৮ মে পুজোপাঠ করে উদ্বোধন করা হয়েছিল নতুন সংসদ ভবনের। উদ্বোধন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সেই অনুষ্ঠানেও তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। এবারও তাঁকে সেন্ট্রাল হলেও অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। অনুষ্ঠানে দীর্ঘ ভাষণ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

একেই কটাক্ষ করে সাকেত লিখেছেন, ‘একজন মহিলা আদিবাসী রাষ্ট্রপতিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নির্লজ্জভাবে সংসদের অনুষ্ঠান থেকে ক্রমাগত বাইরে রেখে চলেছেন। যিনি নাকি আবার ‘আদিবাসী ও মহিলা কল্যাণ’ সরব হন’।

বিরোধীরাও বলছেন এই ভাবে রাষ্ট্রপতিকে এড়িয়ে যাওয়া আসলে রীতি বিরুদ্ধ। নিয়ম অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি যখন অধিবেশন ডাকেন তখনই সংসদ বসে। রাষ্ট্রপতিই সংসদের যৌথ ভাষণ দিয়ে অধিবেশন শুরু করেন। বিরোধীদের মতো যে ভাবে রাষ্ট্রপতিকে এড়িয়ে যাওয়া হল তা ইতিহাসে কালোদিন হিসাবে চিহ্নত হয়ে থাকবে।

তবে সাকেত কিংবা ডেরেকের এক্স পোস্টে স্পষ্ট আগামী দিনে এই ইস্যুকে হাতিয়ার করে প্রচারে নামবে বিরোধীরা।

(পড়তে পারেন। পেশ হল ‘নারী শক্তি বন্দন অধিনিয়ম’, সংরক্ষণ বিল নিয়ে নিজের পালে হাওয়া টানলেন মোদী)

এদিন সংসদের সেন্ট্রাল হলে অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জানান, বিশেষ অধিবেশনে মহিলা সংরক্ষণ বিল আনবে সরকার। তিনি বলেন, নতুন সংসদ ভবনের ঐতিহাসিক ভাবে পথ চলা শুরু করল আজ। এই উপলক্ষে সংসদের প্রথম কার্যক্রম হিসেবে নারী শক্তির প্রবেশদ্বার উন্মোচনকারী গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে এই সরকার। নারী নেতৃত্বাধীন উন্নয়নের আমাদের সংকল্পকে এগিয়ে নিয়ে যেতে আমাদের সরকার একটি গুরুত্বপূর্ণ সংবিধান সংশোধনী বিল আনছে। লোকসভা এবং রাজ্যসভায় মহিলাদের সদস্য সংখ্যা বাড়ানোর লক্ষ্যে এই বিলটি তৈরি করা হয়েছে। ‘নারী শক্তি বন্দন অধিনিয়ম’ আমাদের গণতন্ত্রকে আরও শক্তিশালী করবে।’ সাকেত অবশ্য প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যকেই নিশানা করেছেন।

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।