KBC 15: ৭ কোটির প্রশ্নের মুখোমুখি! কেঁদেকেটে অমিতাভের পায়ে লুটিয়ে পড়ল কেবিসি-র প্রতিযোগী

Advertisement

‘কৌন বনেগা ক্রোড়পতি’-র ১৫ নম্বর সিজনের প্রথম কোটিপতি হয়েছেন পঞ্জাবের খারলা গ্রামের ২১ বছরের যুবক জসকরন সিং। তাঁর উত্তরসূরীও পেয়ে গিয়েছে এই গেম শো। সোনি টিভির তরফে প্রকাশ্যে এসেছে কেবিসির নতুন সিজনের টানটান উত্তেজনায় ভরা নতুন ঝলক। সেখানেই দেখা গেল ৭ কোটির জ্যাকপট প্রশ্নের মুখোমুখি এক প্রতিযোগী। জসকরন সিং পারেননি ৭ কোটি জিততে এই যুবক কি পারবে? প্রশ্ন সবার মনে।  আরও পড়ুন-জানলেই ৭ কোটি! পুরাণ নিয়ে এই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারলেন না KBC-র নতুন কোটিপতি, আপনি জানেন?

নতুন প্রোমোতে কেবিসি-র প্রতিযোগিকে অত্যন্ত আবেগপ্রবণ অবস্থায় দেখা গেল। ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে ক্যামেরার সামনে কাঁদল সেই তরুণ। এরপর ভরা মঞ্চে অমিতাভের পায়ে লুটিয়ে পড়ে ওই যুবক। তবুও কান্না থামেনি তাঁর। এরপর বিগ বি-র পায়ে মাথা ঠেকিয়ে দেয় কেবিসির এই কোটিপতি প্রতিযোগী। এরপর তাঁকে বুকে টেনে নেন সঞ্চালক অমিতাভ বচ্চন। প্রোমোয় শোনা গেল অমিতাভের ব্যারিটোন কন্ঠও। তাঁকে বলতে শোনা গেল, ‘ইঁউহি নেহি উমর আতে হ্যায় জসবাত, ওয়াজাহ জরুর হোতি হ্যায়। বতাউঙ্গা আপকো…’ (এমনি এমনি এই আবেগ ঝরে পড়ে না, তার উপযুক্ত কারণ থাকে। নিশ্চয় বলব আপনাদের’)।

কেবিসির অপর এক প্রোমোতে দেখা গিয়েছে এই প্রতিযোগিকে নিজের ডিজাইনার জ্যাকেট পরিয়ে দিচ্ছেন বিগ বি কারণ খেলার মাঝেই সে বলে উঠে ‘ঠাণ্ডা লাগছে’। কেন এমন কেঁদেকেটে আকুল সে? ৭ কোটি টাকা কি জিতে নিয়েছে সে? তাই কি চোখের জল বাঁধ মানলো না? তা অবশ্য স্পষ্ট নয়। নেটিজেনরা আশাবাদী জসকরণ যা পারেননি, তা করে দেখাবে এই তরুণ।

কেবিসি গেম শো-এর ১৬ নম্বর প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিলে প্রতিযোগী জিতবে ৭ কোটি। ১ কোটি জেতবার পরই মেলে জ্যাকপট প্রশ্নের মুখোমুখি হওয়ার সুযোগ। এক কোটি টাকা জেতার পর পঞ্জাবের জসকরনকে পুরানভিত্তিক প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছিল। সঞ্চালক অমিতাভ বচ্চন প্রশ্ন করেন- ‘পদ্ম পুরাণ অনুসারে, কোন রাজাকে এক হরিণের অভিশাপের জেরে বাঘ হিসাবে একশো বছর বাঁচতে হয়েছিল?’ জসকরণের সামনে ছিল চারটি অপশন-A) ক্ষেমধুরতি B) ধর্মদত্ত C) মিতধ্বজ D) প্রভঞ্জন

কোনওরকম রিস্ক নিতে চাননি প্রতিযোগী। তাই মাঝপথেই খেলা ছাড়েন জসকরন। এই প্রশ্নের সঠিক জবাব, অপশন D অর্থাৎ প্রভঞ্জন।

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।