ঠাকুমাকে খুন করে মাদক খেয়ে অচেতন নাতি, ২ দিন পরে দেহ উদ্ধার করল পুলিশ

Advertisement

বেহালায় বাড়ি থেকে উদ্ধার হল ৯৫ বছর বয়সী বৃদ্ধার পচনধরা দেহ। শনিবার বিকেলে পুষ্পা দাস নামে ওই বৃদ্ধার দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। বাড়ি থেকেই উদ্ধার করা হয়েছে বৃদ্ধার নাতিকে। বৃদ্ধার দেহে রক্তের দাগ রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

বেহালার চণ্ডীতলার বাসিন্দা পুষ্পা দাস পুত্রবধূ পদ্মা দাস ও নাতি অভিষেকের সঙ্গে থাকতেন। প্রতিবেশীরা জানাচ্ছেন, অভিষেক মাদকাসক্ত। বারুইপুরের একটি হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। বিভিন্ন বিষয়ে পদ্মা ও তাঁর ছেলে অভিষেকের মধ্যে নিত্য বিবাদ লেগে থাকত। বৃহস্পতিবার তেমনই বিবাদের শব্দ শুনতে পান প্রতিবেশীরা। রাত ৯টা নাগাদ মা-ছেলের বিবাদ থামাতে যান বৃদ্ধা। তখন অভিষেক তাঁকে ধাক্কা দেয় বলে অভিযোগ। মাটিতে পড়ে আঘাত পান পুষ্পাদেবী। তার পর থেকে তাঁর আর কোনও সাড়াশব্দ পাওয়া যাচ্ছিল না। আহত হন মা পদ্মাদেবীও। ওদিকে ঠাকুমাকে রক্তাক্ত হতে দেখে বাড়ির দরজা তালা দিয়ে চাবি নিয়ে নিজে একটা ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয় অভিষেক।

বেশ কয়েকদিন বাড়ি থেকে কেউ না বেরনোয় সন্দেহ হয় প্রতিবেশীদের। শনিবার সকালে তাঁরা দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় পদ্মাদেবী প্রতিবেশীদের কাছে শাবল চাইছেন। তালা ভেঙে বাড়ি থেকে বেরনোর চেষ্টা করছেন তিনি। এর পরই পুলিশে খবর দেন প্রতিবেশীরা। পুলিশ এসে তালা ভেঙে ঢুকে বৃদ্ধ পুষ্পাদেবীর পচন ধরা দেহ উদ্ধার করে। উদ্ধার করা হয় আহত পদ্মা দাসকেও। এর পর দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করা হয় অভিষেককে। তার চারিদিকে ছড়িয়ে ছিল মাদকের স্ট্রিপ।

 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।