একদিন দেশে মিডিয়া বলে কিছু আর থাকবে না, হিটলার! BBCকাণ্ড নিয়ে তোপ মমতার

Advertisement

বিবিসির অফিসে আইটি সার্ভে নিয়ে মুখ খুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন,কেন তারা বিবিসিকে বেছে নিল। যদি তাদের কোনও বেআইনী কিছু থাকত তবে চিঠি পাঠাতে পারত। তারা কথা বলতে পারত। তারা এমন কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারত যে কীভাবে সমস্যার মেটানো যায়। তবে আমি কোনও বেআইনী কাজকে সমর্থন করছি না। কিন্তু আমি বিশ্বাস করতে পারছি না বিবিসি যদি এই সরকারের বিরুদ্ধে কিছু করে থাকে তবে সেকারণে পরের দিনই অপারেশন শুরু করে ফেলতে হবে, এটা ঠিক নয়। এটা দুর্ভাগ্যজনক। এটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। বিজেপি এই লক্ষ্য নিয়েই সরকার চালাচ্ছে। গতকাল অভিন্ন দেওয়ানি বিধির প্রসঙ্গও তারা তুলেছে। আমি সমস্ত ধর্ম, জাতিকে বিশ্বাস করি।

এদিকে বিবিসি সংবাদমাধ্যমের উপর এই আঘাতকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য়প্রণোদিত বলে উল্লেখ করেন তিনি। এর মাধ্যমে সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতাকে হরণ করা হচ্ছে বলে দাবি তুলেছেন তিনি। তিনি বলেন একদিন এমন হবে যে একদিন এই দেশে কোনও মিডিয়া বাকি থাকবে না।

মমতা বলেন, এটা খুব দুর্ভাগ্যজনক যে বিজেপি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য়প্রণোদিতভাবে সরকার চালাচ্ছে। এটা শুধু সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতাকে হরণ করবে এটা নয়, দেশে কোনও মিডিয়া আর বাকি থাকবে না। ওরাই মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করছে। আমি দুঃখের সঙ্গে বলছি যে মিডিয়া তাদের আওয়াজ তুলতে পারে না। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ম্য়ানেজমেন্ট তাদের কাজ কেড়ে নেবে।

হিটলারের সঙ্গে তিনি বিজেপির কাজের তুলনা করেন। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বিজেপির একমাত্র লক্ষ্য হল একনায়কতন্ত্র। তারা হিটলারের থেকেও বেশি।

মমতা বলেন, আমি জনতার রায়ে জিতে এসেছি। তাদের রায়টা কোথায়? তারা জনাদেশকে মানে না। তারা হিটলারের থেকেও বেশি।

তিনি বলেন, কখনও তারা বিচারব্যবস্থার বিরুদ্ধে গিয়েও কথা বলে। কিন্তু আমরা চাই বিচারব্যবস্থা নিরপেক্ষ থাকুক। কারণ বিচারব্যবস্থাই এই দেশকে বাঁচাতে পারবে।

প্রসঙ্গত মুম্বই ও দিল্লিতে দ্বিতীয়দিনও আয়কর দফতর বিবিসির অফিসে তাদের সার্ভে চালিয়েছে বলে খবর। অভিযোগ উঠেছে বিবিসি তাদের ফান্ড নানাভাবে এদিক ওদিক করেছে। তবে আয়কর দফতর সূত্রে খবর, এই ধরনের পদক্ষেপকে সার্ভে বলেই উল্লেখ করা হচ্ছে। এটি কোনও অভিযান নয়। তবে বিবিসির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই সার্ভের ক্ষেত্রে সবরকম সহায়তা করা হচ্ছে।

এদিকে সম্প্রতি বিবিসি একটি তথ্যচিত্র সামনে এনেছিল। যেটির নাম India the Modi Question। এই তথ্যচিত্রকে ঘিরে তুমুল বিতর্ক দানা বাঁধে। কেন্দ্র এই সংক্রান্ত একাধিক ইউটিউব লিঙ্ককে বন্ধ করার নির্দেশ দেয়।

 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।