FBI investigation on USA citizen death: মার্কিন নাগরিকের মৃত্যুর ঘটনায় কলকাতা পুলিশকে আরও তথ্য দিল এফবিআই

Advertisement

৯১ বছর বয়সি এক মার্কিন নাগরিকের মৃত্যুর ঘটনায় সপ্তাহখানেক আগে কলকাতার এক যুবককে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। এফবিআই–এর কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কলকাতা পুলিশ ওই যুবককে গ্রেফতার করেছিল। সেই ঘটনায় কলকাতা পুলিশকে আরও কিছু প্রমাণ দিল এফবিআই। কী পদ্ধতিতে ওই মার্কিন নাগরিককে প্রতারণা করা হয়েছিল? তার বেশ কিছু প্রমাণ কলকাতা পুলিশকে দিয়েছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা। জানা গিয়েছে, সিবিআই মারফত এই তথ্য কলকাতা পুলিশের কাছে পাঠানো হয়েছে।

মাসখানেক আগে সাইবার প্রতারণার শিকার হয়েছিলেন ওই মার্কিন নাগরিক। এরপরে আমেরিকার তদন্তকারী সংস্থা এফবিআই ইন্টারপোলের সাহায্যে কলকাতা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে। সেই ঘটনায় বেনিয়াপুকুরের বাসিন্দা এক যুবককে গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিশ। ধৃতের নাম শিজান আলি হায়দার। এফবিআই কলকাতা পুলিশকে মোট ১১ জনের তালিকা পাঠিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

কীভাবে হয়েছিল প্রতারণা?

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, একাকী ওই মার্কিন বৃদ্ধ শেষ বয়সের সম্বল হিসেবে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা রেখেছিলাম ৮৬ হাজার ডলার বা ভারতীয় মুদ্রায় ৭১ লক্ষ টাকা। মাসখানেক আগে সেই টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। মার্কিন তদন্তকারী সংস্থা এফবিআই তদন্তে নেমে জানতে পারে সাইবার প্রতারকরা ‘টেক্সট নাউ’ নামে একটি অ্যাপ ব্যবহার করে ওই বৃদ্ধকে ফোন করে। তারা কম দামে বৃদ্ধকে তাঁর প্রয়োজনীয় একটি সফটওয়্যার বিক্রির প্রতিশ্রুতি দেয়। সেই সফটওয়্যার বিক্রির নামে বৃদ্ধের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে সমস্ত টাকা হাতিয়ে নেয় সাইবার প্রতারকরা। এদিকে শেষ বয়সের সম্বলটুকু হারিয়ে অবসাদে আত্মঘাতী হয়েছিলেন ওই বৃদ্ধ। ঘটনার তদন্ত নেমে এফবিআই জানতে পারে, সাইবার প্রতারকরা ভারতের কলকাতার বাসিন্দা। কারা ওই বৃদ্ধকে ফোন করেছিল তা শনাক্ত করে এফবিআই। এরপরে ইন্টারপোলের সাহায্যে কলকাতা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে ১১ জনের নামের একটি তালিকা পাঠায়।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।