Meghalaya: ইস্তেহার প্রকাশের পরই তৃণমূল ছাড়লেন এক প্রার্থী, অভিষেক কি চাপে পড়লেন?

Advertisement

একে একে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে নেতারা চলে যাচ্ছেন। একের পর এক নেতা পদত্যাগ করছেন। আর তাতেই নির্বাচনের ময়দানে চমক তৈরি হচ্ছে। মঙ্গলবারই মেঘের রাজ্যে ইস্তেহার প্রকাশ করেছেন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং সেখানে ছিলেন একাধিক নেতা থেকে বিধায়ক। মেঘালয়ে বিধানসভা নির্বাচন উপলক্ষ্যে ইস্তেহার প্রকাশের পরই শিলং প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক বৈঠক করে তৃণমূল কংগ্রেস ছাড়ার কথা ঘোষণা করলেন পিন্থোরুমক্রাহ বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী সাম্বোরলাং ডিয়েংডোহ।

বিষয়টি ঠিক কেমন হল?‌ এদিন তৃণমূল কংগ্রেস ত্যাগ করলেও তিনি জানান, ওই আসন থেকেই বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। তৃণমূল কংগ্রেস নির্বাচনের মুখে ছাড়ার কারণ নিয়ে সাম্বোরলাং ডিয়েংডোহ বলেন, ‘আমি নির্বাচনী প্রচারে লক্ষ্য করছিলাম যে, আমরা অন্য রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে কাদা ছোড়াছুড়ি করছি। কিন্তু আমরা গঠনমূলক রাজনীতি করতে চেয়েছিলাম। আর সেটা না হওয়ায় আমি দল থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলাম।’ এই যুক্তি মেনে নিতে নারাজ তৃণমূল কংগ্রেস। কারণ রাজনীতি করতে এসে একে অপরের খারাপটা তুলে ধরবেন না সেটা হয় না। নিশ্চয়ই বিজেপির হাতে তামাক খেয়েছেন সাম্বোরলাং বলে মনে করছে তৃণমূল কংগ্রেস।

কে এই সাম্বোরলাং ডিয়েংডোহ?‌ ২০২২ সালের ২২ অগস্ট শিলংয়ে মেঘালয় রাজ্য নেতৃত্বের হাত ধরে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেছিলেন সাম্বোরলাং ডিয়েংডোহ। তিনি এখানে সমাজসেবী হিসাবে পরিচিত। তারপর প্রার্থীও হন। এবার হঠাৎ তৃণমূল কংগ্রেস থেকে দলত্যাগ করে নয়া কৌশল নিয়েছেন। এই বিষয়ে মেঘালয় তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক মানস ভুঁইয়া বলেন, ‘আমরা এই বিষয়টি নিয়ে একদমই চিন্তিত নই। যিনি দল ছেড়েছেন তিনি ততটা গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন না। আমাদের ভোটের লড়াইয়ে কোনও অসুবিধা হবে না।’

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ মেঘালয়কে ঢেলে সাজাতে এবং মানুষের জীবনের উন্নয়ন ঘটাতে ইস্তেহার তৈরি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তাতে মেঘালয়বাসী বেশ উৎসাহিত। এমনকী মহিলারা ভাল সাড়া দিচ্ছেন। মেঘালয় বিধানসভা নির্বাচন ২৭ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়ন দাখিল শুরু ৩১ জানুয়ারি। এবার ছেড়ে যাওয়া আসনে নতুন প্রার্থী দেবে তৃণমূল কংগ্রেস। ৬০ আসন বিশিষ্ট মেঘালয় বিধানসভার ৫২টি আসনে প্রার্থী দিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল। তবে বাংলায় একুশের নির্বাচনের আগে অনেকেই দল ছেড়ে বিজেপিতে গিয়েছিল। কিন্তু তাতে জিততে কোনও অসুবিধা হয়নি তৃণমূল কংগ্রেসের। এবারও হবে না বলে মনে করছে তৃণমূল শিবির।

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।