Kerosine Oil: রাজ্যে কেরোসিন বরাদ্দ ৮৭ শতাংশ কমাল কেন্দ্র, প্রতিবাদে পত্রাঘাত করল নবান্ন

Advertisement

আবার বঞ্চনা করা হল বাংলাকে। রেশন গ্রাহকদের জন্য কেরোসিন বন্টনে বাংলাকে বঞ্চনা করা হচ্ছে বলে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ করল রাজ্য সরকার। এমনকী বরাদ্দ বাড়ানোর দাবিও করা হয়েছে। রাজ্য খাদ্য দফতরের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় পেট্রলিয়াম মন্ত্রকের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। খাদ্য দফতরের সচিব পারভেজ আমেদ সিদ্দিকি চিঠি পাঠিয়েছেন।

ঠিক কী লেখা হয়েছে চিঠিতে?‌ এই চিঠিতে লেখা হয়েছে, প্রতিবেশী অসম, বিহার, ওড়িশার থেকেও কম পরিমাণ কেরোসিন দেওয়া হচ্ছে বাংলাকে। রাজ্যগুলিকে তিন মাসের জন্য কেরোসিনের পরিমাণ নির্ধারণ করে কেন্দ্রীয় সরকার। চলতি আর্থিক বছরেও বাংলার জন্য তিন মাসের বরাদ্দ ছিল ১ লক্ষ ৭৬ হাজার কিলোলিটার। কিন্তু গত অক্টোবর মাসে সেটা অর্ধেক কমিয়ে ৮৮ হাজার কিলোলিটার করা হয়। জানুয়ারি মাস থেকে বরাদ্দ আরও কমিয়ে করা হয়েছে ২২ হাজার ৩৫৬ কিলোলিটার। রাজ্যের বরাদ্দ প্রায় ৮৭ শতাংশ কমানো হয়েছে। তাই বরাদ্দর পরিমাণ অন্তত ৬০ হাজার কিলোলিটার করতে অনুরোধ করা হয়েছে।

ঠিক কী বলছে কেরোসিন ডিলার সংগঠন?‌ এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর হইচই পড়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে ওয়েস্ট বেঙ্গল কেরোসিন ডিলার্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অশোক গুপ্ত বলেন, ‘‌বরাদ্দের পরিমাণ আগের মতো করার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে অনুরোধ করছি। এখন প্রতি মাসে রাজ্য মাত্র ৭ হাজার কিলোলিটার কেরোসিন পাবে। এতে একজন রেশন গ্রাহক ১০০ মিলিলিটার কেরোসিনও পাবে না।’‌

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ রাজ্য খাদ্য দফতরের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারকে জানানো হয়েছে, গরিব মানুষেরজন্য কেরোসিন অত্যন্ত প্রয়োজন। রাজ্যের বহু মানুষ এখনও কেরোসিনের উপর নির্ভরশীল। দাম বৃদ্ধির পরেও অক্টোবর–নভেম্বরে প্রতি মাসে ১৩ হাজার কিলোলিটার কেরোসিন রেশন গ্রাহকরা নিয়েছেন। মাঝে লিটার প্রতি দাম ১০০ টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছিল। তাই পেট্রল–ডিজেলের তুলনায় কেরোসিনের দাম অনেক কম হওয়া উচিত।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।