সন্তোষে টানা পাঁচ ম্যাচ জয়ের নজির, মহারাষ্ট্রকে ২-১ হারিয়ে মূলপর্বে বাংলা

Advertisement

একেবারে পাঁচে পাঁচ। সন্তোষ ট্রফিতে বাংলা প্রথম পাঁচটি ম্যাচ জিতে পৌঁছে গেল মূল পর্বে। গ্রুপ পর্ব অপরাজিত থেকেই সরাসরি মূল পর্বে চলে গেল বাংলা। রবিবার গ্রুপের অন্যতম শক্তিশালী প্রতিপক্ষ মহারাষ্ট্রকে হারিয়ে বাংলা পৌঁছে গেল সন্তোষ ট্রফি ২০২৩-এর চূড়ান্ত পর্বে।

কোলাপুরের ছত্রপতি শাহু স্টেডিয়ামে স্টিভেন ডায়াসের মহারাষ্ট্রকে ২-১ গোলে পরাজিত করে বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যের টিম। এই ম্যাচ ড্র করলেই বাংলা শীর্ষে থেকে পৌঁছে যেত মূল। কারণ মহারাষ্ট্রের সঙ্গে পয়েন্ট এক হলেও গোল পার্থক্যে তারা এগিয়ে ছিল। এই ম্যাচ শুরুর আগে বাংলা এবং মহারাষ্ট্র দুই দলেরই পয়েন্ট ছিল ১২। এদিন বাংলা জেতায় তারাই গ্রুপ শীর্ষে থেকে মূল পর্বে গেল।

আরও পড়ুন: Santosh-এ মধ্যপ্রদেশকেও ৫-০ উড়িয়ে দিল বাংলা,শুভেচ্ছা মেয়রের, কিন্তু খুশি নন কোচ

তবে ম্যাচটি নিঃসন্দেহেই বেশ কঠিন ছিল বাংলার কাছে। ঘরের মাঠে পূর্ণ সমর্থন নিয়েই নেমেছিল মহারাষ্ট্র। ছত্রপতি স্টেডিয়ামের গ্যালারি জুড়ে দর্শকদের চিৎকার। রাজ্যের ফ্ল্যাগ, ফুটবলারদের কাট আউট নিয়েই মাঠে হাজির হয়েছিলেন মহারাষ্ট্র সমর্থকেরা। তবে কঠিন চ্যালেঞ্জ সামনে থাকলেও, আত্মবিশ্বাসী ছিলেন বাংলার ছেলেরা। আর তারই ফল পেলেন নরহরি শ্রেষ্ঠারা। বাংলার হয়ে এ দিন গোল করেন সুরজিৎ হাঁসদা এবং দীপক রজক।

খেলার ৮ মিনিটেই এ দিন বাংলাকে এগিয়ে দেন সুরজিৎ হাঁসদা। গোল পরিশোধের লক্ষ্যে এর পর বাংলার বক্সে হানা দেয় মহারাষ্ট্রের ফুটবলাররা। তবে ৩৯ মিনিটে বাঁ-পায়ের দুরন্ত প্লেসিংয়ে ২-০ করেন দীপক রজক। প্রথমার্ধেই জোড়া গোলে এগিয়ে যায় বাংলা।

দ্বিতীয়ার্ধেও বেশ উপভোগ্য ফুটবল হয়। একটি গোল পরিশোধ করে মহারাষ্ট্র। ১-২ করেন মহারাষ্ট্রের আরিফ শেখ। একটা সময় মহারাষ্ট্রের আক্রমণের ঝাঁজে বেশ চাপে পড়ে গিয়েছিলেন নরহরি শ্রেষ্ঠারা। তবে বাংলাকে হারাতে পারেনি মহারাষ্ট্র। ৩ পয়েন্ট নিয়েই মাঠে ছাড়েন বাংলার ফুটবলাররা। অপরাজেয় তকমা নিয়েই মূলপর্বের লড়াইয়ে নামবে বাংলা।

আরও পড়ুন: সন্তোষ ট্রফিতে আগুনে মেজাজে বাংলা, দামান ও দিউকে ৫-০ উড়িয়ে দিল বিশ্বজিতের টিম

তবে মাঝে মাঠে বোতলবৃষ্টি শুরু হয়। বেশ কিছুক্ষণ খেলা বন্ধ থাকে। তবে বাংলাতে দমানো যায়নি। এ দিন বাংলার রক্ষণ লড়াকু ফুটবল উপহার দেয়। ম্যাচ জিতলেও রেফারিং নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য। বাংলার কোচ বলেন, ‘অযথা রেফারি আমাদের বেশ কয়েকটা হলুদ কার্ড দেখাল। আমাদের বিরুদ্ধে জোর করে ফাউল দিল। সব কিছু প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধে আমরা জিতেছি।’ সোম বারই শহরে ফিরছে বাংলা দল। আপাতত কয়েক দিনের ছুটি। তার পরেই মূল রাউন্ডের অনুশীলনে নেমে পড়বেন নরহরি, দীপকরা।

এর আগে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে অন্যান্য গ্রুপগুলি থেকে সন্তোষ ট্রফির চূড়ান্ত পর্বে পৌঁছে গিয়েছে দিল্লি, কেরালা, গোয়া, মেঘালয়। এ বার তাদের সঙ্গেই যোগ দিল বাংলা। পাঁচ ম্যাচ মিলিয়ে কোয়ালিফাইং রাউন্ডে মোট ১৭ গোল করে বাংলা এবং ১টি গোল তারা হজম করেছে। শেষ ম্যাচে মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধেই একমাত্র গোলটি হজম করেছে বাংলা।

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।