Egg: ডিম দিয়ে তৈরি ওইসব খাবার নিষিদ্ধ হল সমস্ত হোটেলে, কড়া নির্দেশ ওই রাজ্যে

Advertisement

ডিম দিয়ে তৈরি মেয়নিজ নিষিদ্ধ করা হল কেরলের সমস্ত হোটেল, রেস্তরাঁতে। রাজ্য জুড়ে একের পর এক খাদ্যে বিষক্রিয়ার ঘটনার জেরে এবার কড়া পদক্ষেপ নিল কেরল সরকার। রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বীনা জর্জ জানিয়েছেন, খাবারের মান ও স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত ব্যাপারে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

মন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন, সমস্ত প্যাকেটজাত খাবারে উৎপাদনের তারিখ ও বেস্ট বিফোর স্টিকার লেখা বাধ্যতামূলক। পাশাপাশি খাবার সংক্রান্ত ব্যাপারে হাইজিন রেটিং অ্যাপ দ্রুত বাজারে আনা হচ্ছে। তিনি হোটেল. বেকারি, ক্য়াটারিং অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গেও এনিয়ে কথাবার্তা বলেন। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, হোটেলে যারা কাজ করছেন তাদের জন্য হেল্থ কার্ড রাখা বাধ্যতামূলক। পাশাপাশি ফুড সেফটি অফিসাররা সমস্ত খাবার বিক্রির প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাগুলি খতিয়ে দেখবে। একটি টাস্ক ফোর্স নিয়মিত মনিটরিংয়ের জন্য রাখা হচ্ছে। কোথাও কোনও অভিযোগ থাকলে তা গুরুত্ব দিয়ে খতিয়ে দেখা হবে।

এদিকে সপ্তাহ দুয়েক আগে কোট্টায়াম মেডিক্যাল কলেজের এক নার্স অল ফাহাম নামে একটি খাবার খাওয়ার পরে মৃত্যু হয়। পরে দেখা যায় খাদ্যে বিষক্রিয়ার জেরে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। গত দুসপ্তাহে অন্তত দু ডজন খাদ্যে বিষক্রিয়ার ঘটনা সামনে এসেছে কেরলে। এরপর বিভিন্ন হোটেলে অভিযানে নামা হয় সরকারি তরফে। আর তাতেই নানা গলদ সামনে এসেছে।

এদিকে একাধিক ঘটনার ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে এই মেয়নিজটাই খাদ্যে বিষক্রিয়ার জন্য় সবথেকে বেশি দায়ী। মূলত ডিম থেকে তৈরি হয় এই মেয়নিজ। এটি বার্গার, স্যান্ডউইচ, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, তন্দুরির সঙ্গে মেশানো হয়। আসলে ভালো করে সেদ্ধ না হওয়া ডিমের সাদা অংশকে এক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। আর সেই সাদা অংশ পচে গিয়ে খাদ্যে বিষক্রিয়া তৈরি করে। ক্ষতিকর ব্যাকটিরিয়া তৈরি করে এই ধরনের ডিম। যার জেরে সালমোনেলা ব্যাকটিরিয়াও তৈরি হয়।

এদিকে হোটেলের মালিকরাও জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁরা ভেজিটেবিল অয়েল দিয়ে তৈরি মেয়নিজ তারা ব্যবহার করবে। কেরলের বেকারি ইউনিয়নের এক কর্তা জানিয়েছেন, আমরা ডিমের মেয়নিজ ব্যবহার করব না। এবার ভেজিটেবিল অয়েলের মেয়নিজ ব্যবহার করব বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

মন্ত্রী জানিয়েছেন, সমস্ত ফুড আউটলেট ও ধাবার জন্য লাইসেন্স অত্যন্ত দরকার। সমস্ত জায়গায় জলের মান দেখা হবে। হোটেলগুলির পরিস্থিতি দেখার জন্য টাস্ক ফোর্স কাজ করবে। গত সপ্তাহে ৮০০ হোটেলে অভিযান হয়। এরপর ৬০টিকে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ১২০টি হোটেলে বড় জরিমানা করা হয়েছে।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।