Bihar Minister on Ramacharitmanas: ‘বিদ্বেষ ছড়ায় রামচরিতমানস’, বিস্ফোরক মন্তব্য করে বিতর্কে বিহারের শিক্ষামন্ত্রী

Advertisement

রামচরিতমানস নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য বিহারের শিক্ষামন্ত্রীর। নীতীশ সরকারের মন্ত্রী চন্দ্রশেখর বুধবার দাবি করেন, রামচরিতমানসের মতো বইগুলি মানুষের মধ্যে বিদ্বেষ ছড়ায়। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘মনুস্মৃতি’ এবং গোলওয়ালকরের ‘বাঞ্চ অফ থটস’ বইগুলি সামাজিক বিভাজন তৈরি করে। তাঁর এহেন বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়েছে ইতিমধ্যেই। নিজের মন্তব্যের পক্ষে যুক্তি খাড়া করতে চন্দ্রশেখর রামচরিতমানসের দুটি লাইনের উল্লেখ করেন। এরপর তিনি বলেন, ‘ভালোবাসা ও মমতায় একটি জাতি মহান হয়ে ওঠে। রামচরিতমানস, মনুস্মৃতি এবং বাঞ্চ অফ থটসের মতো বইগুলি ঘৃণা ও সামাজিক বিভাজনের বীজ বপন করে। এই কারণেই মানুষ মনুস্মৃতি পোড়ায় এবং রামচরিতমানসের একটি অংশকে এড়িয়ে চলে। এই অংশটি দলিত, পিছিয়ে পড়া মানুষ এবং মহিলাদের শিক্ষার বিরুদ্ধে কথা বলে।’

আরজেডির টিকিটে মাধেপুরা আসন থেকে জিতে বিধায়ক হওয়া চন্দ্রশেখর নালন্দা ওপেন ইউনিভার্সিটির সমাবর্তনে বক্তব্য রাখার সময় এই বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন। সেই সময় অনুষ্ঠান মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বিহারের রাজ্যপাল ফাগু চৌহানও। এদিকে চন্দ্রশেখরের এহেন মন্তব্যের নিন্দায় সরব হয়েছেন প্রাক্তন আম আদমি পার্টি নেতা কুমার বিশ্বাস। চন্দ্রশেখরের বক্তব্যকে ট্যাগ করে বিহারের মন্ত্রীকে ‘নিরক্ষর শিক্ষামন্ত্রী’ বলে আক্রমণ শানান কুমার বিশ্বাস। তিনি এক টুইট বার্তায় লেখেন, ‘শ্রদ্ধেয় নীতীশ কুমারজি, আপনার নিরক্ষর শিক্ষামন্ত্রীর অবিলম্বে শিক্ষার প্রয়োজন। তিনি ভগবান শঙ্করের নামকে অর্থহীন করে তুলছেন। আমি আপনাকে অনেক সম্মান করি। তাই নিজের কথা এভাবে তুলে ধরছি। আপনার মন্ত্রীকে শান্ত করার জন্য তাঁকে ‘আপনে আপনে রাম’ সেশনে পাঠান।’

এদিকে বিজেপিও চন্দ্রশেখরের বক্তব্যের বিরোধিতায় সরব হয়েছে। এই ইস্যুতে মন্ত্রীকে আক্রমণ শানিয়ে বিজেপি ওবিসি মোর্চার জাতীয় সাধারণ সম্পাদক ও বিহার বিজেপির মুখপাত্র ডঃ নিখিল আনন্দ বলেন, ‘মন্ত্রীর বক্তব্য নিন্দনীয়। এটা খুবই আশ্চর্যজনক যে শিক্ষামন্ত্রী একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে বক্তৃতা করার সময় ধর্মীয় বিদ্বেষের উপর ভিত্তি করে তাঁর নির্বোধ মতামত প্রকাশ করছিলেন। মূলত আরজেডি মুসলিম তুষ্টির রাজনীতি করছে। এই ধরনের বিবৃতির মাধ্যমেই তা প্রতিফলিত হচ্ছে।’ বিজেপি নেতা আরও বলেন, ‘তেজস্বী যাদবকে তাঁর মন্ত্রীর এহেন বক্তব্যের বিষয়ে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করতে হবে এবং এদেশের হিন্দুদের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। আরজেডি নেতারা কি মনে করেন যে ভগবান রাম এবং ভগবান শ্রীকৃষ্ণের পাশাপাশি হিন্দুদের ধর্মীয় শাস্ত্রকে গালি দিয়ে তাঁরা তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষ রাজনীতি করবেন?’

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।