Khardah: খড়দায় খাটের নীচে থরে থরে টাকা, কমিশন থেকে আয়!

Advertisement

খড়দহের ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয়েছিল প্রায় ৩২ লক্ষ টাকা। কীভাবে এত বিপুল টাকা ওই ফ্ল্যাটে গেল তা নিয়ে প্রশ্নটা থেকেই গিয়েছিল। সেই ফ্ল্যাটে থাকেন অমিতাভ দাস নামে এক ব্যক্তি। এদিক পাড়ার লোকজনের কাছে তিনি অধ্যাপক বলেই পরিচিত ছিলেন। তবে সূত্রের খবর, দক্ষিণ ভারতের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র ভর্তি করিয়ে দেওয়ার কমিশন বাবদ আদায় করা অর্থই তিনি ফ্ল্য়াটে রেখেছিলেন বলে পুলিশের কাছে দাবি করেছেন অমিতাভ। দক্ষিণ ভারতের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তিনি ছাত্র ভর্তি করিয়ে দিতেন। আর সেখান থেকেই তিনি কমিশন আদায় করতেন। তবে সেটাও নিছক কম কিছু নয়। একেবারে লক্ষ লক্ষ টাকা।

তবে এই কমিশন আদায়ের পেছনে তাঁর কাছে কোনও নথি রয়েছে কি না তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে। রাজ্যের একাধিক জায়গায় ছড়়ানো রয়েছে অমিতাভের অফিস। ডানলপ, হাবড়া, বারাসত, হুগলি, হাওড়ায় অমিতাভের অফিস রয়েছে বলে জানতে পেরেছেন তদন্তকারীরা। সেই মতো সংশ্লিষ্ট অফিসগুলিতেও হানা দিচ্ছেন তদন্তকারীরা।

পুলিশ সূত্রে খবর, জেরায় অমিতাভ জানিয়েছে, সম্প্রতি অন্তত ২৫জনকে তিনি অন্য রাজ্যের বেসরকারি ফার্মাসি কলেজে ভর্তি করিয়ে দিয়েছিলেন। তাদের কাছ থেকেও তিনি কমিশন বাবদ টাকা সংগ্রহ করেছেন। কিন্তু কীভাবে এইসব কলেজের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ গড়ে উঠল?

পুলিশ সূত্রে খবর, আসলে তিনি আগে রসায়নের কোচিং করাতেন। সেই সূত্র ধরেই একাধিক কলেজের সঙ্গে তার যোগাযোগ গড়ে ওঠে। ভিনরাজ্যের সেই কলেজে পশ্চিমবঙ্গ থেকে প্রচুর ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয়। অনলাইনেই অনেক ক্ষেত্রে পড়াশোনা হয়। দূর শিক্ষার মাধ্যমেও পড়াশোনা হয়ে থাকে ওই কলেজগুলিতে। মোটা টাকার বিনিময়ে তাদের ওই কলেজে ভর্তি হতে হয়। আর সেখানেই মিডলম্যান হিসাবে কাজ করতেন অমিতাভ। পশ্চিমবঙ্গ থেকে ছাত্র ভর্তি করিয়ে দেওয়ার বিনিময়ে মোটা টাকার কমিশন। তবে কারোর সঙ্গে ছাত্র ভর্তির নাম করিয়ে প্রতারণা করা হয়েছে কি না সেটাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

ইতিমধ্যেই তার ডানলপের অফিসে গিয়ে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। টাকা উদ্ধারের ব্যাপারে আয়কর দফতরেও জানানো হয়েছে। এদিকে প্রয়োজনে পড়ুয়াদের সঙ্গেও কথা বলবেন তদন্তকারীরা।

এর আগে প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল কোটি কোটি টাকা। তারপর থেকেই কলকাতায় টাকা উদ্ধারের খবর সামনে আসতেই অনেকের মনে পড়ে যায় সেই যকের ধনের কথা।

 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।