Bankura: পুরনোরাই অঞ্চল সভাপতি, গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব তৃণমূলে, পার্টি অফিস ভাঙচুর দলেরই কর্মীদের

Advertisement

নতুন বছরের প্রথম দিনেই বাঁকুড়ায় তৃণমূল জেলা সাংগঠনিক অঞ্চল সভাপতিদের নাম প্রকাশ করেছে শাসক দল। তাতে বেশ কয়েকটি ব্লকে কোনও রদবদল করা হয়নি। পুরনোদেরই রাখা হয়েছে। তারপর থেকেই একে একে প্রকাশ্যে আসছে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। এনিয়ে এবার সিমলাপালের পর এবার ইন্দপুর ব্লকে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসল। তৃণমূলের পার্টি অফিসে ভাঙচুর চালাল দলেরই কর্মীরা। পঞ্চায়েত ভোটের আগে এমন ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই অস্বস্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস।

ইন্দপুর ব্লকের সভাপতি রেজাউল খানের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে। সূত্রের খবর, রেজাউল খানসহ দলের একাংশ নেতৃত্ব চেয়েছিলেন সামনে যেহেতু পঞ্চায়েত নির্বাচন রয়েছে তাই এবার অঞ্চল সভাপতিদের রদবদল করা হোক। তাঁদের বক্তব্য, নির্বাচনে ভালো ফল করতে গেলে রদবদল করা প্রয়োজন। কিন্তু, গত জানুয়ারি বাঁকুড়ার অঞ্চল সভাপতিদের নাম ঘোষণা করা হয়। তাতে দেখা যায়, ইন্দপুর ব্লকের অঞ্চল সভাপতিপদে রদবদল করা হয়নি। পুরনোদেরই সভাপতি রাখা হয়েছে। সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্ষোভে ফেটে পড়েন ইন্দপুর ব্লকের সভাপতি রেজাউল খান। তিনি প্রকাশ্যেই দলের জেলা সভাপতির বিরুদ্ধে স্বৈরাচারী মনোভাব দেখানোর অভিযোগ তোলেন। সেইসঙ্গে দাবি করেন, আগামী দিনে ইন্দপুর ব্লকে ফল খারাপ হলে তার জন্য জেলা সভাপতিকে এই দায়িত্ব নিতে হবে।

যদিও জেলা সভাপতি জানিয়েছেন, দলের কোর কমিটির তরফে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেক্ষেত্রে তার কোনও হাত নেই। অন্যদিকে, এ নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিজেপি। তাদের বক্তব্য, ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে তৃণমূল নিজেদের মধ্যেই দ্বন্দ্ব করছে। এটাই তৃণমূলের বৈশিষ্ট্য। তৃণমূলের সবাই দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত। উল্লেখ্য, দুদিন আগেই সিমলাপাল ব্লকে অঞ্চল সভাপতিদের রদবদল না করা নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন দলের কর্মীরা। সে ক্ষেত্রেও পার্টি অফিস ভাঙচুর করেছিল দলেরই কর্মীরা। তার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার ইন্দপুরে এই ঘটনা ঘটল।

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।