Aadhaar Card Online Address Update: নয়া বছরে আধার কার্ড সংক্রান্ত নিয়মে বড় পরিবর্তন! বাড়িতে বসে এক চুটকিতে হবে কাজ

Advertisement

পরিবারের প্রধানের সম্মতি মিললেই আপডেট করা যাবে ঠিকানা। উপভোক্তাদের সেই অনুমতি দিল ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (UIDAI)। যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দেশের লাখ-লাখ মানুষ উপকৃত হবেন বলে আশাপ্রকাশ করা হয়েছে।

কীভাবে সেই ঠিকানা বদলের প্রক্রিয়া শুরু করা যাবে?

ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার তরফে জানানো হয়েছে, রেশন কার্ড, মার্কশিট, ম্যারেজ সার্টিফিকেট, পাসপোর্টের মতো নথি-সহ আবেদনকারী এবং পরিবারের প্রধানের সম্পর্কের প্রমাণপত্র জমা দিতে হবে। সেইসঙ্গে পরিবারের প্রধান এবং আবেদনকারীর নাম দিতে হবে বলে জানানো হয়েছে। পরিবারের প্রধানকে ওটিপি-নির্ভর অথেন্টিকেশন করতে হবে।

ওই বিবৃতিতে আরও জানানো হয়েছে, যদি সম্পর্ক (পরিবারে প্রধান ও সংশ্লিষ্ট আবেদনকারীর মধ্যে) প্রমাণস্বরূপ কোনও নথি না থাকে, তাহলে ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার নির্ধারিত ফর্ম্যাটে পরিবারের প্রধানকে সেলফ-ডিক্ল্যারেশন ফর্ম জমা দিতে হবে। 

UIDAI-র তরফে বলা হয়েছে, ‘সন্তান, জীবনসঙ্গী, অভিভাবকদের মতো আত্মীয়দের ক্ষেত্রে পরিবারের প্রধান ভিত্তিক অনলাইনে ঠিকানা আপডেটের বিষয়টি অত্যন্ত কার্যকর হবে। যাঁদের আধার কার্ডে ঠিকানা আপডেটের জন্য নিজেদের নামে প্রয়োজনীয় নথি নেই। বিভিন্ন কারণে দেশের মধ্যেই মানুষ বিভিন্ন শহরে যাচ্ছেন। সেই পরিস্থিতিতে লাখ-লাখ মানুষের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি লাভজনক হবে।’

এমনিতে আপাতত বৈধ নথি বা প্রমাণপত্র দিয়ে আধারের ঠিকানা আপডেট করার সুযোগ আছে। সেইসঙ্গে এবার নয়া সুযোগ হয়েছে। UIDAI-র তরফে বলা হয়েছে, ‘১৮ বছরের ঊর্ধ্বে যে কোনও ব্যক্তি এই প্রক্রিয়ায় পরিবারের প্রধান হিসেবে বিবেচিত হতে পারেন এবং এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নিজের আত্মীয়কে নিজের ঠিকানা শেয়ার করতে পারেন।’ 

কীভাবে অনলাইনে ঠিকানা আপডেট করতে পারবেন?

১) অনলাইনে ঠিকানা আপডেটের জন্য ‘মাই আধার’ (‘My Aadhaar’) পোর্টালে যেতে হবে।

২) তারপর পরিবারের প্রধানের আধার নম্বর দিতে হবে। যা যাচাই করতে হবে। গোপনীয়তা বজায় রাখতে স্ক্রিনে পরিবারের প্রধানের আর কোনও তথ্য দেখানো হবে না। 

৩) ভ্যালিডেশন বা যাচাই-পর্ব মিটে যাওয়ার পর সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে পরিবারের প্রধানের সঙ্গে সম্পর্কের প্রমাণ সংক্রান্ত নথি আপলোড করতে হবে। 

৪) UIDAI-র তরফে জানানো হয়েছে, এই পরিষেবার জন্য আবেদনকারীদের ৫০ টাকা দিতে হবে। সফল পেমেন্টের পর আবেদনকারীর সঙ্গে সার্ভিস রিকোয়েস্ট নম্বর শেয়ার করা হবে। সেইসঙ্গে ঠিকানা সংক্রান্ত যে আবেদন জানানো হয়েছে, সেজন্য পরিবারের প্রধানের কাছে একটি এসএমএস যাবে।

৫) ‘মাই আধার’ পোর্টালে ঢুকে লগ-ইন করে সেই রিকোয়েস্ট গ্রহণ করতে পারেন। যদি নোটিফিকেশন পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে তিনি সম্মতি দেন, তাহলে আবেদন সম্পূর্ণ হবে। যদি ৩০ দিনের মধ্যে সেই কাজটা না করেন পরিবারের প্রধান, তাহলে আবেদন বন্ধ হয়ে যাবে। যেটাই হোক না কেন, সেই সংক্রান্ত তথ্য আবেদনকারীকে জানিয়ে দেওয়া হবে।

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।