FIFA WC Qatar Beer Advertisement: বিশ্বকাপে বিয়ার নিষিদ্ধ করেও স্টেডিয়ামে মদের প্রচারের ‘ভুল’, কান লাল FIFA-র!

Advertisement

আচমকাই বিশ্বকাপ শুরুর দুই দিন আগে বিয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল কাতারে। প্রতিশ্রুতি দিয়েও বিয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করায় অনেক ফুটবল সমর্থকই ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন। তবে ফিফা প্রধান জিয়ানি ইনফ্যান্টিনো বলেছিলেন, ‘বিয়ার না খেলে কেউ মরে যাবেন না।’ সেই ফিফাই ইংল্যান্ড বনাম ইরানের ম্যাচে ‘বড় ভুল’ করে বসল। খেলা শুরুর আগে স্কোরবোর্ডে বাডওয়াইজারের বিজ্ঞাপন দিল ফিফা। উল্লেখ্য, সুরাকে ‘হারাম’ হিসেবে গণ্য করা হয় ইসলাম ধর্মে। সাধারণত মুসলিম খেলোয়াড়রা কোনও সুরা সংস্থার বিজ্ঞাপন দেন না। ক্রিকেটেও এর নজির রয়েছে। সম্প্রতি টি২০ বিশ্বকাপের পর মঞ্চে শ্যাম্পেনের বোতল খোলা হয়নি মোইন আলি এবং আদিল রশিদের ধর্মবিশ্বাসকে সম্মান জানিয়ে। এই আবহে বিয়ারের বিজ্ঞাপন ঘিরে বিতর্ক শুরু হয়ে গিয়েছে ম্যাচ শেষ হতে না হতেই। 

রিপোর্ট অনুযায়ী, বিশ্বকাপ শুরুর আগে স্টেডিয়ামে বিয়ার বিক্রির অনুমোদন পেয়েছিল ফিফা। সেই মতো বাডওয়াইজারের সঙ্গে চুক্তিও হয়েছিল বিশ্ব ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থার। তবে সূত্রের খবর, বিশ্বকাপ শুরুর কয়েকদিন আগে কাতারের রাজ পরিবারের কোনও এক প্রভাবশালী সদস্য স্টেডিয়াম পরিদর্শনে গিয়ে বিয়ারের স্টল দেখে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। এরপরই বিশ্বকাপ শুরুর দুই দিন আগে বিয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার ঘোষণা করেন ইনফ্যান্টিনো। 

এদিকে বিয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ইনফ্যান্টিনো বলেছিলেন, ‘১০ টি ফ্যান জোনে ১০০,০০০-র বেশি মানুষ একসঙ্গে মদ্যপান করতে পারেন। ব্যক্তিগতভাবে আমার মনে হয়, দিনের মধ্যে যদি তিন ঘণ্টা বিয়ার করতে না পারেন, তাহলে আপনি বেঁচে থাকতে পারবেন। কারণ ফ্রান্স বা স্পেন বা পর্তুগাল বা স্কটল্যান্ডেও একই নিয়ম ছিল। স্টেডিয়ামের মধ্যে বিয়ার নিষিদ্ধ ছিল।’

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।