নিশানা ভুলে খুন হয়েছেন লাল্টু, সোনারপুরে যুবকের দেহ উদ্ধারে জানাল পুলিশ

Advertisement

অন্য এক যুবককে নিশানা করতে গিয়ে সোনারপুরের যুবক লাল্টু হাজরাকে খুন করে ফেলেছে দুষ্কৃতীরা। মূল অভিযুক্তকে জেরা করে এমনই দাবি করছে পুলিশ। ধৃতের নাম দীপ মণ্ডল। এলাকায় দাগী দুষ্কৃতী হিসাবে পরিচিত সে। ধৃত জানিয়েছে, বিশ্বজিৎ সরকার নামে এক যুবককে খুনের পরিকল্পনা ছিল তার।

শনিবার ভোরে রাজপুর – সোনারপুর পুরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডে কামরাবাদ রেল গেটের কাছে একটি পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় লাল্টু হাজরা নামে এক যুবকের দেহ। তার পেটে ২টি গুলির চিহ্ন ছিল। হাতের কড়ে আঙুল ছিল ভাঙা। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, পরিত্যক্ত বাড়িটি ময়ূখ ভট্টাচার্য নামে এক যুবকের। রাতে সেখানে একাই ছিল তার বন্ধু লাল্টু। গভীর রাতে অন্য এক বন্ধু সেখানে ঘুমাতে এসে দেখে বিছানায় পড়ে রয়েছে লাল্টুর গুলিবিদ্ধ দেহ। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, রাতে ওই বাড়িতে ৫ জন যুবক ঢুকেছিল। তাদের সূত্র ধরেই দীপকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, দীপ এলাকায় দাগী দুষ্কৃতী হিসাবে পরিচিত। অস্ত্র আইনে গ্রেফতার হয়েছিল সে। সম্প্রতি জামিন পায়। বিজয়া দশমীর দিন দীপের সঙ্গে বিশ্বজিতের বিবাদ হয়। যার জেরে দীপকে মারধর করেন বিশ্বজিৎ। এর পর থেকেই প্রতিশোধ নেওয়ার সুযোগ খুঁজছিল দীপ। শুক্রবার রাতে বিশ্বজিৎ ময়ূখের বাড়িতে থাকবে বলে তার কাছে খবর ছিল। সেই মতো নিজের গ্যাংয়ের ৫ সদস্যকে অপারেশনে পাঠায় সে। পরিত্যক্ত ওই বাড়ির দরজা জানলা খোলাই থাকত। সেখান দিয়ে বাড়িতে ঢুকে তারা দেখে, বিছানায় ঘুমাচ্ছে লাল্টু। এর পর লাল্টুর সঙ্গে তাদের বিবাদ হয়। তখন তাকে লক্ষ্য করে গুলি করে ১ দুষ্কৃতী। যে ৫ জন ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল তাদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।