Pune girl raped: বাড়িই নরক, টানা ৬ বছর বাবা-কাকা-দাদুর ধর্ষণে বিপন্ন তরুণী!

Advertisement

জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো: এও এক ভারত। নারীশক্তির প্রতীক যে দেশ, যে দেশে নারীরা দেবী রূপে পূজিতা, সে দেশে নারী-পুরুষের সমান অধিকারের জন্য লড়াই, সেখানেই মেয়েদের প্রতি একের পর এক জঘন্য অপরাধ নাড়িয়ে দিচ্ছে। সম্প্রতি, শ্রদ্ধা ওয়াকারের নৃশংস হত্যার ঘটনায় স্তম্ভিত দেশ। তখনই আরও এক ভয়ংকর ঘটনা সাড়া ফেলেছে। পুণের ১৭ বছরের এক কিশোরী এবার মুখ খুললেন বাবা, কাকা ও দাদুর বিরুদ্ধে। অভিযোগ, বিগত ৬ বছর ধরে বার বার তাকে ধর্ষণ ও যৌন নিগ্রহ করেছে কিশোরীরই বাবা-কাকা ও দাদু। কলেজে যৌন হেনস্থা নিয়ে বিশাকা কমিটির সামনে নিজের মানসিক আঘাতের কথা স্বীকার করেছেন ওই তরুণী। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আরও পড়ুন, Shraddha Walker murder case: খুনের পর শ্রদ্ধার নাড়িভুঁড়ির কিমা বানায় আফতাব!

পুলিস জানিয়েছে, ইতোমধ্যেই কিশোরীর বাবাকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৬ ও ৩৫৪ ধারা এবং ২০১২ সালের যৌন অপরাধ ও শিশুদের সুরক্ষা (পকসো) আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগ, ২০১৬ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে কিশোরী যখন উত্তর প্রদেশের নিজের গ্রামে ছিলেন তখন তাঁর কাকা তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। এমনকী যৌন হেনস্থা করে তাঁর দাদু। 

পুলিস আধিকারিকের বক্তব্য অনুযায়ী, ”২০১৮-য় পুণে ফিরে আসার পর কিশোরী তার বাবাকে চিঠি লিখে সমস্ত ঘটনা জানায়। কিন্তু মেয়েকে রক্ষা করার পরিবর্তে, এই নরক যন্ত্রণা থেকে বার করে আনার বদলে মায়ের না থাকার সুযোগ নিয়ে কিশোরীর বাবাও একাধিকবার ধর্ষণ করে।” গত বুধবার বিশ্বক নীতি-নির্দেশিকা অনুযায়ী গঠিত কমিটির সভায় ওই তরুণী তাঁর বাবা, দাদা ও আঙ্কেলকে ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের কথা জানান। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের বিষয়টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানান, কলেজ কর্তৃপক্ষ সঙ্গে সঙ্গে থানায় যান। পুলিস ইতোমধ্যেই কিশোরীর বাড়ি থেকে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করার আশ্বাস দিয়েছে এবং কিশোরীকে কাউন্সিলিংয়ের জন্য পাঠিয়েছে। 

আরও পড়ুন, ১০ হাজার ফিট উঁচু থেকে ঝাঁপ! ভারতীয় সেনার প্রথম মহিলা স্কাইডাইভার ল্যান্সনায়েক মঞ্জু

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App) 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।