মিসাইল আক্রমণ পোল্যান্ডে, মৃত ২; রাশিয়ার আক্রমণ নয় দাবি বাইডেনের

Advertisement

জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো: একটি রাশিয়ার তৈরি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে মঙ্গলবার পোল্যান্ডে দুই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ওয়ারশ বলেছে, এটি ইউক্রেনের যুদ্ধের সম্ভাব্য এস্কেলেশন। এরপরে পোল্যান্ড তাদের সামরিক বাহিনীকে যেকোনও ঘটনার জন্য প্রস্তুত রেখেছে। ওয়ারশ বলেছে যে ক্ষেপণাস্ত্রটির আঘাতে প্রজেওডো গ্রামে দুজন নিহত হয়েছেন। যদিও কে এটি ছুড়েছে তার চূড়ান্ত প্রমাণ নেই। যদিও এর পাশাপাশি মস্কোর রাষ্ট্রদূতকে ‘তাৎক্ষনিক বিস্তারিত ব্যাখ্যা’ দেওয়ার জন্য তলব করা হয়েছে।

জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠকের পরে ওয়ারশ তার সামরিক বাহিনীর জন্য উচ্চ সতর্কতা জারি করেছে। মুখপাত্র পিওর মুলার সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘কিছু যুদ্ধ ইউনিট এবং অন্যান্য বাহিনীর প্রস্তুতি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে’।

হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন পোল্যান্ডের নেতা আন্দ্রেজ ডুদার সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন এবং ‘পোল্যান্ডের তদন্তে পূর্ণ মার্কিন সমর্থন এবং সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছেন’।

অন্যদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বালিতে ন্যাটো এবং জি-৭ নেতাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

বাইডেন বলেছেন, ‘আমি নিশ্চিত করব ঠিক কী ঘটেছে তা আমরা আগে যাচাই করছি … তারপরে আমরা আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপটি ঠিক করব’।

রাশিয়া এই মিসাইল ছুঁড়েছে কিনা সেই প্রশ্নের উতরে বাইডেন বললেন, ‘প্রাথমিক তথ্য দেখাচ্ছে রাশিয়া এর পিছনে নাও থাকতে পারে। সম্পূর্ণ তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত আমি এটা বলতে চাই না।

কিন্তু ট্র্যাজেক্টোরির লাইনে এটি অসম্ভব যে রাশিয়া থেকে গুলি চালানো হয়েছিল, তবে আমরা দেখব’।

মার্কিন রাষ্ট্রপতির মতে মিসাইলের ট্র্যাজেক্টরি লাইনের মাধ্যমে মনে হচ্ছে যে এই মিসাইল রাশিয়া থেকে ছোঁড়া হয়নি।   

পোল্যান্ড সম্মিলিত প্রতিরক্ষার প্রতি ন্যাটোর প্রতিশ্রুতি মাধ্যমে সুরক্ষিত। এটি প্রতিষ্ঠা চুক্তির পঞ্চম অনুচ্ছেদে অন্তর্ভুক্ত। এই ঘটনাটি দুর্ঘটনাজনিত নাকি ইচ্ছাকৃত সেই বিষয়ের মাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হবে জোটের প্রতিক্রিয়া।

আরও পড়ুন: Jeff Bezos: আমাজনের ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাই হবে! এদিকে বেজোসের বান্ধবী চলেছেন মহাকাশে হাওয়া খেতে… 

বাইডেন পোল্যান্ডে বিস্ফোরণ সম্পর্কে ন্যাটো প্রধান জেনস স্টলটেনবার্গের সঙ্গেও কথা বলেছেন। অন্যদিকে জোটের রাষ্ট্রদূতরা বুধবার একটি জরুরি বৈঠক করবেন।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান চার্লস মিশেল বলেছেন যে তিনি ‘অবাক’ এবং ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ইন্দোনেশিয়ার G20 সম্মেলনে আলোচনার আহ্বান জানিয়েছেন। এই ঘটনাটির ব্যাপকভাবে নিন্দা করেছেন সকলেই।

ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভলোদিমির জেলেনস্কি এর আগে বলেছিলেন যে দুটি রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্র পোল্যান্ডে আঘাত করেছে যাকে তিনি ‘খুবই গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা’ হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

পোল্যান্ডের বিস্ফোরণটি কিয়েভের বাহিনী দ্বারা নিক্ষেপ করা ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রের ফলে ঘটে থাকতে পারে তা অস্বীকার করেছে ইউক্রেন। ইউক্রেনের বিদেশমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা একটি ‘ষড়যন্ত্র তত্ত্ব’ হিসাবে একে প্রত্যাখ্যান করেছেন। অন্যদিকে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এই ঘটনার পিছনের তাদের হাত থাকার দাবিকে প্রত্যাখ্যান করেছে।

মঙ্গলবার পোল্যান্ডের সীমান্তের কাছে লভিভ সহ ইউক্রেন জুড়ে রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্রগুলি আঘাত করার পরে এই বিস্ফোরণ ঘটে। জেলেনস্কি বলেছিলেন যে স্ট্রাইকগুলি প্রায় দশ মিলিয়ন মানুষের বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করেছে, যদিও পরে এটি তাদের মধ্যে আট মিলিয়নের সংযোগ পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল। পাশাপাশি দুটি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে গেছে।

জেলেনস্কি বলেছিলেন যে রাশিয়া সারা দেশে শক্তি কেন্দ্রগুলিতে ৮৫টি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। এই হামলাকে তিনি ‘গণহত্যা’ এবং G20-র ‘মুখে চড়’ বলে নিন্দা করেছেন।

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App) 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।