লক্ষ্মীর ভান্ডার পেলেও মিলবে বিধবা ভাতা, পঞ্চায়েত সমিতি-জেলা পরিষদকে ডেডলাইন বেঁধে দিলেন মমতা দিলেন

Advertisement

লক্ষ্মীর ভান্ডার নিয়ে বড় ঘোষণা
Advertisement

লক্ষ্মীর ভান্ডার নিয়ে বড় ঘোষণা

পঞ্চায়েত ভোটের আগে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্প নিয়ে বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নদিয়ার রানাঘাটে প্রশাসনিত সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন যে এবার থেকে লক্ষ্মীর ভান্ডারের টাকা যাঁরা পাচ্ছেন তাঁদের যদি বিধবা ভাতা পাওয়ার বয়স হয়ে থাকে তাহলে তাঁরা লক্ষ্মীর ভান্ডারের টাকার পাশাপাশি বিধবা ভাতার টাকাও পাবেন। ১ নভেম্বর থেকে জেলায় জেলায় রাজ্যের সর্বত্র শুরু হয়ে গিয়েছে দুয়ারে সরকার প্রকল্প। এবার বকেয়া বিদ্যুতের মাশুল মেটানোর জন্যও একাধিক সুযোগ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কোনও রকম জরিমানা ছাড়াই কেবল বিদ্যুতের বকেয়া বিল মিটিয়ে দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

টাকা দিচ্ছে না কেন্দ্র

টাকা দিচ্ছে না কেন্দ্র

রাজ্যের একাধিক প্রকল্পের টাকা বন্ধ করে দিয়েছে মোদী সরকার। ১০০ দিনের কাজের টাকা বন্ধ করে দেওয়া নিয়ে ফের সরব হয়েছেন তিনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন অভিযোগ করেছেন মোদী সরকার একাধিক প্রকল্পের টাকা বন্ধ করে দিয়েছে। জিএসটির টাকাও কেটে নিয়ে যাচ্ছে মোদী সরকার। কিন্তু রাজ্য সরকার সব প্রকল্পের কাজ জারি রেখেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ২৮ লক্ষ জব হোল্ডারদের টাকা দিয়েছে। একাধিক প্রকল্পের কাজ রাজ্য সরকার টাকা দিয়ে চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

পঞ্চায়েত সমিতি, জেলা পরিষদকে বার্তা

পঞ্চায়েত সমিতি, জেলা পরিষদকে বার্তা

সামনেই পঞ্চায়েত ভোট তার আগে কাজ শেষ করতে হবে। পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদের সদস্যদের কাজ শেষ করার জন্য তিন মাস সময়সীমা বেঁধে দিয়েন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলে পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদরা কাজ করার জন্য যে টাকা পেয়েছে সেই টাকা খরচ করতেই হবে তিন মাসের মধ্যে। গ্রামের সব খারাপ রাস্তা সারাইয়ের নির্দেশ দিেয়ছেন তিনি। নিজেদের ফান্ডের টাকা দিয়েই যেন গ্রামের সব রাস্তা সারাই করা হয় তার নির্দেশ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

পূর্ত দফতরের কাজ নিয়ে কড়া বার্তা

পূর্ত দফতরের কাজ নিয়ে কড়া বার্তা

নদিয়া সফরে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সার্কিট হাউসের নির্মাণ কাজ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। ২ কোটি টাকা খরচ করে কৃষ্ণনগরের সার্কিট হাউস পুনর্নির্মান করা হয়েছে। তার পরেও উপরের অংশ ভেঙে গিয়েছে। সেই সারাইয়ের জন্য আবার অতিরিক্ত ৭১ লক্ষ টাকা চাওয়া হচ্ছে। এই ধরনের বাজে কাজ যাঁরা করছে সেই সব কনট্রাকেটরদোর ব্ল্যাকলিস্ট করে দেওয়া হবে বলে কড়া বার্তা দিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে খারাপ কাজ করলে সেটা আবার তাঁদেরই টাকা খরচ করে তৈরি করে দিতে হবে বলে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।