ট্যুইটার ২.০! পরাগের জায়গায় এলেন শ্রীরাম কৃষ্ণন

Advertisement

জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো: টুইটারে এখন সবচেয়ে নতুন ভারতীয় হলেন শ্রীরাম কৃষ্ণন। তিনি একজন ভারতীয়-আমেরিকান ইঞ্জিনিয়ার। ট্যুইটারের প্রধান এলন মাস্ক তাঁকে নিয়োগ করেন। মাইক্রো ব্লগিং এই সাইটটির আমূল পরিবর্তন করার লক্ষে এই নিয়োগ বলে মনে করা হচ্ছে। এই সাইটটি তিনি সম্প্রতি ৪৪ বিলিয়ন ডলার খরচ করে কিনেছেন। কৃষ্ণনের ট্যুইটারে ইতিহাস রয়েছে। তাই এখানে তিনি একেবারেই নতুন নন। কিন্তু এইবার তাঁকে নিয়োগ করেছেন ট্যুইটারের প্রধান মাস্ক নিজে। চেন্নাইয়ে জন্ম হওয়া এই প্রযুক্তিবিদকে মাস্ক নিয়োগ করেছেন ট্যুইটারকে মাস্কের ফ্রী স্পিচের ভাবনার সঙ্গে মিলিয়ে দেওয়ার কাজ করার জন্য।

কৃষ্ণন বর্তমানে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ফার্ম অ্যান্ড্রেসেন হোরোভিটজ (a16z) এর অংশীদার এবং তিনি সাময়িকভাবে ট্যুইটারে অতিরিক্ত দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। তিনি নিশ্চিত করেছেন যে তিনি তার বর্তমান চাকরি ছাড়বেন না।

তিনি তার নতুন ভূমিকা সম্পর্কে লিখেছেন, ‘আমি (এবং a16z) মনে করি এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কোম্পানি এবং এটি বিশ্বে ব্যাপক প্রভাব ফেলতে পারে এবং এলনই এই কাজ করতে পারেন।‘

তিনি বলেন যে তিনি তার বর্তমান চাকরি ছাড়ছেন না এবং তিনি পরবর্তী সিইও হওয়ার জন্য লাইনে নেই। প্রাক্তন সিইও পরাগ আগরওয়ালের পরে ট্যুইটারের শীর্ষে আরও ক ভারতীয়কে দেখার আশা শেষ হল বলে মনে করা হচ্ছে।

বিভিন্ন প্রযুক্তি কোম্পানিগুলিতে ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্যক্তিদের উচ্চ প্রোফাইলে কাজ করার ঘটনা বিবেচনা করে কৃষ্ণনকে ঘিরেও জল্পনা ছড়িয়ে পরে। অন্যদিকে ট্যুটারের নেতৃত্বে পাকাপাকিভাবে না এলেও এলন মাস্কের নেতৃত্বের উপর ভরসা রেখেছেন কৃষ্ণন।

মাস্ক দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ট্যুইটারে তুমুল উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। প্রাক্তন সিইও পরাগ আগরওয়াল এবং ট্যুইটারের প্রাক্তন আইনী, নীতি প্রধান বিজয়া গাড্ডে সহ শীর্ষ আধিকারিকদের ছাঁটাই করা হয়।

আরও পড়ুন: বাপ্পির সুরেই ভাষা খুঁজে পেল চিনাদের কোভিড লকডাউন প্রতিবাদ!

আইআইটি মুম্বই থেকে গ্রাজুয়েশন পাশ করে ২০১১ সালে আগারওয়াল ২০১১ সালে ট্যুইটারে একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ২০১৭ সালে চিফ টেকনোলজি অফিসারের পদে উন্নীত হন এবং তারপর জ্যাক ডরসির প্রস্থানের পরে তাঁকে CEO পদে উন্নীত করা হয়।

হায়দ্রাবাদে জন্মগ্রহণ করা গাড্ডে যুক্তরাষ্ট্রে চলে আসেন যখন তাঁর বয়স ছিল তিন বছর। তিনি সেখানে তার শিক্ষা সমাপ্ত করেন এবং ২০১১ সালে ট্যুইটারে যোগ দেন। ট্যুইটারে ভুয়ো খবর মোকাবিলায় তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।

এই সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে জাল অ্যাকাউন্টের সংখ্যা নিয়ে তাকে এবং শীর্ষ বিনিয়োগকারীদের বিভ্রান্ত করার অভিযোগে এই দুই কর্তাকে ছাঁটাই করেন মাস্ক।

কৃষ্ণন একটি মূল দলের অংশ হবেন যা মাস্ককে ট্যুইটার পুনর্গঠনে সহায়তা করবে। তিনি এর আগে ২০১৭-২০১৯ সালে ট্যুইটারে কনজিউমার প্রোডাক্ট দলের প্রধান কাজ করেছিলেন। তার লিঙ্কডইন প্রোফাইল বলছে এটি বছরে ২০ শতাংশের বেশি ট্যুইটার ব্যবহারকারী বৃদ্ধি করেছে।

নতুন ভূমিকা নেওয়ার পর থেকে, কৃষ্ণন কোম্পানির বিভিন্ন আপডেট সম্পর্কে ট্যুইট করছেন। এর মধ্যে রয়েছে যে ভেরিফাই করার প্রক্রিয়াটি পুনর্গঠিত হচ্ছে এবং ঘৃণ্য বিষয়বস্তুর বিষয়ে ট্যুইটারের মৌলিক নীতিগুলি পরিবর্তিত হয়নি।

কৃষ্ণন ক্রিপ্টো এবং ওয়েব৩ কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেন। অনুমান করা হচ্ছে যে তাকে ট্যুইটারে ক্রিপ্টো ডিএনএ ইনজেক্ট করার জন্য নিয়োগ করা হয়েছে।

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App) 

Advertisement

Malek

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।